করোনা আপডেটস : সোমবার আক্রান্তের সংখ্যা আজ প্রায় ২৯,১০৫ জন, মোট আক্রান্ত ৮,৭৯,৪৬৬ লক্ষের গন্ডি ছাড়িয়েছে।মোট মৃতের  সংখ্যা ২৩,১৮৭ জন।


ভারতের করোনভাইরাসএ আক্রান্তের সংখ্যা প্রতিদিন এক ভাবে বেড়েই চলেছে।সোমবার আক্রান্তের সংখ্যা ৮,৭৯,৪৬৬ লক্ষের গন্ডি ছাড়িয়েছে।

সকাল ৬ টায় আপডেট হওয়া তথ্যে দেখা গেছে যে দৈনিক কোভিড -১৯ ক্ষেত্রে  আক্রান্তের সংখ্যা আজ প্রায় ২৯,১০৫।

আজ সকালে মহারাষ্ট্র এবং অন্যান্য রাজ্য থেকে নতুন সংখ্যা আসার পরে করোনাভাইরাস কেস ৮,৭৯,৪৬৬ তে দাঁড়িয়েছে।সোমবার সকালে স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তথ্য অনুযায়ী কোরোনার মোট আক্টিভ কেস ৩,০১,৪৬৮ জন ,মোট মৃতের  সংখ্যা ২৩,১৮৭ জন। 

তিনটি সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্থ রাজ্য - মহারাষ্ট্র, দিল্লি এবং তামিলনাড়ু দ্বারা প্রকাশিত সংখ্যার যোগ করলে, ভারতের করোনভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা পাঁচ লক্ষ ছাড়িয়েছে।
 মহারাষ্ট্র সবার উপরে আজ  মহারাষ্ট্রে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৭,৮২৭ টিরও বেশি।মোট মামলার সংখ্যা ২,৫৪,৪২৭ জন ছাড়িয়ে গিয়েছে। 

একইভাবে দিল্লিতে ১,৫৭৩ টি এবং তামিলনাড়ুতে ৪,২৪৪ টি নতুন কেস হয়েছে। উভয় রাজ্যে মোট করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা সংখ্যা যথাক্রমে ১,১২,৪৯৪ এবং ১,৩৮,৪৭০ জন।

পশ্চিমবঙ্গতে  আজ করোনাতে আক্রান্তের সংখ্যা ১,৫৬০ মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৩০,০১৩ জন, আজ মৃতের সংখ্যা ২৬ জন, মোট মৃতের সংখ্যা ৯৩২ জন।

রাজ্যে সার্বিক ভাবে প্রতি ১০০ টেস্টের নিরিখে পজিটিভ আসার হার ৪.৮৬%। সেখানে শুধুমাত্র গত চার দিনের হিসেবে তা ১০ শতাংশেরও বেশি। গত ২৪ ঘণ্টায় প্রতি ১০০ টেস্টে ১৩ জনেরও বেশি মানুষ কোভিড পজিটিভ হয়েছেন। এই অবস্থায় টেস্ট আরও বাড়ানোর কথা বলছেন বিশেষজ্ঞরা। সুইৎজারল্যান্ড থেকে ৫ কোটি টাকা খরচ করে আধুনিক টেস্টিং মেশিন (কোবাস ৬৮০০/৮৮০০ সিস্টেম) আনাচ্ছে রাজ্য সরকার। রাজ্যের কোভিড ম্যানেজমেন্ট অ্যান্ড কনটেনমেন্ট কমিটির স্টেট কো-অর্ডিনেটর প্রদীপ মিত্র বলেন, ‘মে-র শেষ দিকে এই মেশিনটি অর্ডার করা হয়েছে। এতে প্রতি ২৪ ঘণ্টায় ৪ হাজার টেস্ট করা যাবে। আশা করছি অগস্টের মাঝামাঝি যন্ত্রটি আসবে।’ টেস্টিং, ট্র্যাকিং এবং আইসোলেটিং--- এই তিন মন্ত্রে করোনা নিয়ন্ত্রণে এসেছে এশিয়ার বৃহত্তম বস্তি, মুম্বইয়ের ধারাভিতে। শুধু মুম্বই নয়, দিল্লি, তামিলনাড়ুও প্রতিদিন বিপুল সংখ্যায় টেস্ট করাচ্ছে। রাজ্যে ক্রমাগত বেড়ে চলা সংক্রমণের প্রেক্ষিতে স্বাস্থ্য দপ্তরকেও সে পথ নেওয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। টেস্টের সংখ্যা বাড়ানোর ব্যাপারে এর আগেও রাজ্যের উপরে চাপ এসেছিল। তখন খুব দ্রুত দৈনিক ১২০০ থেকে ১০ হাজার টেস্টের গণ্ডি পেরিয়েছিল রাজ্য (১৯ জুন)। কিন্তু তার পর টেস্টের সংখ্যা কমবেশি একই থেকে গিয়েছে।

এই চারটি রাজ্যে যুক্ত করে ভারতের করোনভাইরাস মামলার সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৮,৭৯,৪৬৬  জন।

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তথ্য অনুযায়ী, কোভিড -১৯ এ আজ এক দিনের সংখ্যা বেড়েছে ২৯,১০৫  জন ফলে ভারতের সংখ্যা ৮,৭৯,৪৬৬ জন এ পৌঁছেছে, আর মৃতের সংখ্যা ৫০০ টি, মোট মৃতের সংখ্যা  ২৩,১৮৭ এ পৌঁছেছে, কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তথ্য অনুযায়ী।


Post a Comment

If have any doubts, Please let me know

Previous Post Next Post